Home Blog Page 3
আড়াই অংশ বুঝায় না। আড়াইবাড়ির পত্তন হয় আজ থেকে 'নানক ১৫০ বছর পূর্বে। তখন অল্প কয়েকটি বাড়ি ছিল। বড় গ্রামের লােকরা। অবজ্ঞা করে বলত আড়াইবাড়ি অর্থাৎ কম সংখ্যক বাড়ি। এখন বর্তমানে শত শত বাড়ি হয়েছে।
বিশ বা কুড়ি নয়, বিষ বা বিষাক্ত আড়া থেকে বিশারা। যে বাড়ি বা বাড়িগুলাের পাশে বিষাক্ত আড়া বা জঙ্গল আছে তা-ই বিশারা বাড়ি।
চারওয়া' অর্থ মাছ ধরার ফাঁদ। চারওয়া> চাওড়া> চাউরা শব্দটি বিবর্তিত হয়েছে। এ গ্রাম ও অঞ্চলে মরা নদী ও খালবিল রয়েছে। বর্ষাকালে এগুলােতে প্রচুর পানি জমে । প্রচুর মাছ পাওয়া যায়। এ মাছধরার যন্ত্রটি দিয়ে স্থানীয় মানুষেরা মাছ ধরে বলেই চাউরা নামকরণ হয়েছে।
নয়ন এর কোমল রূপ নয়ান । নয়াপুর> নয়ানপুর> নয়নপুর বিবর্তিত হয়েছে। সম্ভবত নতুন গ্রাম বা নতুন অঞ্চল বলেই নয়নপুর। সবচেয়ে গ্রহণযােগ্য মত হলাে- নয়ান অর্থ নত, নয়ানজলি-অর্থ অপরিসর জলনালী। মাদলা থেকে পশ্চিমে প্রবাহিত বিজনী নদী এবং দূরের মানুষ বলে সালদা নদী। এ নদীটি নয়নপুর অতিক্রম করে আরও পশ্চিমে প্রবাহিত হয়। এ জলধারাটি ছােট অর্থাৎ অপরিসর এবং উজানের...
কাসাইর অর্থ বাংলাে বা কাছারি। হিন্দি-কচহরি>কাছারি । মনকাসাইর গ্রাম প্রতিষ্ঠাকালে কোনাে এক ধনবান মনের মতাে করে একটি কাছারি ঘর তৈরি করে ছিল। এ থেকে গ্রামের নাম মনকাসাইর।
কালিয়া অর্থ কালবাউশ মাছ। এ গ্রামে বড় বড় গর্তে ও খালে কালবাউশ মাছ পাওয়া যেত। এ জন্য গ্রামের নাম কালিয়ারা।
এ গ্রামে প্রাচীনকালে বেশ কয়েকজন কুস্তিগীর বা বাহাদুর ছিল। এ অঞ্চলে তাদের খ্যাতি ছিল। এ বাহাদুরদের নামে বাহাদুরপুর হয়। কেউ কেউ বলেছেন, একজন মাত্র বাহাদুর বা বীর ছিল এ গ্রামে।
বাংলা সাহিত্যের কবি সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত রচিত 'ঝর্নার গান কবিতায় লিখেছেন বন ঝাউয়ের ঝোপগুলাে কালসারের দল চরে লেখক শফিকুল ইসলাম কালসার গ্রন্থে লিখেছেন শিরদাড়ায় কালাে দাগ বিশিষ্ট এক প্রকার হরিণকে ডাকা হয় কালসার। এখান থেকেই আমরা পাই কালসার নামকরণ। প্রায় ২/৩শত বছর পূর্বে এ গ্রামটি গভীর জঙ্গল ছিল। তখন এখানে ডােরাকাটা হরিণ বিচরণ করত। তাই...
অষ্ট অর্থ আট। অর্থাৎ আটটি জল বুঝায়। প্রকৃতপক্ষে অজ্জ>অজ থেকে অষ্ট শব্দটি এসেছে। 'অজ' অর্থ খাটি নিতান্ত। অর্থাৎ অজজঙ্গল হলাে খাটি জঙ্গল। কৈখলা গ্রামের পূর্বদিকে বর্তমান তা সমতল জমি। পর্বে তা পরিপূর্ণ আমল ছিল। জঙ্গল কেটে এখানে জনবসতি গড়ে ওঠে।
Brahmanbaria shohor
করোনায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিসিকে কমেছে উৎপাদন, ২০০ কোটি টাকার ক্ষতি বাজারে পণ্যের চাহিদা তুলনামূলকভাবে কমে যাওয়া এবং প্রয়োজনীয় কাঁচামাল যথাসময়ে না আসায় উৎপাদন অর্ধেকে নেমে এসেছে বলে জানিয়েছেন কারখানা মালিকরা। কিছু কিছু কারখানার উৎপাদন একেবারেই বন্ধ রাখা হয়েছে। প্রায় ২২ একর জায়গাজুড়ে বিস্তৃত ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিসিক শিল্পনগরী। তেল, সাবান ও ওষুধসহ বিভিন্ন পণ্যের...
error: Content is protected !!